২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:০৫ অপরাহ্ন

দেশি-বিদেশিদের ব্ল্যাকমেইল করে টাকা আদায় করতেন হেলেনা : র‌্যাব

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

সীমান্তবাণী ডেস্ক : র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেছেন, দেশি-বিদেশি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের টার্গেট করে প্রথমে সখ্যতা তৈরি করে পরবর্তীতে ব্ল্যাকমেইল করে টাকা আদায় করতেন আওয়ামী লীগের মহিলা-বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্যপদ থেকে অব্যাহতি পাওয়া আলোচিত হেলেনা জাহাঙ্গীর।

তিনি বলেন, এসব ব্যক্তিদের কাছ থেকে ব্ল্যাকমেইল করে টাকা আদায় করা হয়েছে সে বিষয়ে আমরা তথ্য পেয়েছি। এ বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

শনিবার (৩১ জুলাই) দুপুরে র‌্যাব সদরদফতরে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমাদের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ যদি মনে করেন এই মামলাটির তদন্ত র‌্যাব করবে তাহলে যথাযথ প্রক্রিয়ায় মাধ্যমে আমরা আবেদন করবো। তবে তা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তের ওপর ভিত্তি করে হবে। হেলেনা জাহাঙ্গীরের স্বামী ১৯৯০ সাল থেকে গার্মেন্টসে চাকরি করতেন। পরবর্তীতে বিভিন্ন সময়ে অন্যদের সঙ্গে পার্টনারশিপের মাধ্যমে ব্যবসা শুরু করে এখন পর্যন্ত পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের মালিক তিনি।

তিনি বলেন, ২০১২ সাল থেকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে জয়যাত্রা ফাউন্ডেশনের নামে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করতেন। জয়যাত্রা ফাউন্ডেশনের নামে হেলেনা জাহাঙ্গীর দেশ-বিদেশ থেকে অর্থ সংগ্রহ করতেন। দেশি-বিদেশি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের টার্গেট করে প্রথমে সখ্যতা তৈরি করে পরবর্তীতে ব্ল্যাকমেইল করে টাকা আদায় করতেন হেলেনা।

কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, হেলেনা সুনির্দিষ্ট একজন ব্যক্তির জন্য থেমে থাকেননি। প্রতিনিয়ত বিভিন্ন মানুষরে সঙ্গে পরিচয় ঘটেছে তার। উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য যাকেই প্রয়োজন হয়েছে তাকে তিনি ঘায়েল করেছেন। বিভিন্ন সময় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সঙ্গে ছবি তুলেছেন এবং সেটা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়েছেন শুধুমাত্র উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য। আমাদের মামলার কারণ এটাই। তিনি রাষ্ট্রের ব্যক্তিদের সম্পর্কে নেতিবাচক মন্তব্য করেছেন, যা তাদের বিব্রতকর অবস্থায় ফেলেছে, জনগণের মধ্যেও বিব্রতকর পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, হেলেনা জাহাঙ্গীর আমাদেরকে জানিয়েছেন, তার ১৫ থেকে ১৬টি ফ্ল্যাট রয়েছে। এছাড়া বেশ কয়েকটি ফাউন্ডেশনের সঙ্গে তিনি জড়িত। বিভিন্ন সময় চাঁদাবাজি কিংবা ব্ল্যাকমেইল করে আদায় করা টাকাগুলো তিনি ফাউন্ডেশনের কাজে লাগাতেন। সুনামগঞ্জে তিনি ত্রাণ বিতরণ করায় স্থানীয়রা তাকে পল্লীমাতা উপাধি দিয়েছেন। ফাউন্ডেশনের নামে প্রবাসীদের কাছ থেকে অনেক টাকা এনেছেন। এগুলো কী কাজে ব্যবহার করা হয়েছে সে বিষয়ে কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

বিঞ্জাপন

বিঞ্জাপন


More News Of This Category

বিঞ্জাপন

বিঞ্জাপন

ক্যালেন্ডার

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০  

বিঞ্জাপন

ভিজিটর গননা

0104404
Visit Today : 496
Visit Yesterday : 602
This Month : 12205
Total Visit : 104404
Hits Today : 3352
Total Hits : 580997

বিঞ্জাপন

বিঞ্জাপন

বিঞ্জাপন