১০ অগাস্ট ২০২২, ০৫:২১ পূর্বাহ্ন

স্টাফ রিপোর্টার : শিশুদের বই উৎসবের দিন শিক্ষার্থীদের পেটানোর ঘটনার ছবি বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হলে সামন্তা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এম এম এমদাদ জাহিদকে শোকজ করা হয়েছে।

আজ ৩ জানুয়ারী  সোমবার দুপুরে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস এম এমদাদ জাহিদকে শোকজ করেছেন বলে অফিস সুত্রে জানা গেছে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা আফজালুর রহমান জানান, বছরের প্রথম দিন শিশু শিক্ষার্তীদের মাঝে নতুন বছরের নতুন বই বিতরনের সময় শিক্ষার্থীদের মারপিটের ঘটনায় মহেশপুর উপজেলার সামন্তা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এম এম এমদাদ জাহিদকে শোকজ করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, শোকজের জবাব ঠিক ঠাক না দিলে ঐশিক্ষককের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে সামন্তা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এম এম এমদাদ জাহিদ জানান, সোমবার দুপুরে শোকজের চিঠি হাতে পেয়েছি। দু’এক দিনের মধ্যেই শোকজের জবাব দেব।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবু হাসান জানান, স্কুলের শিক্ষার্থীদের বিনা কারনে মারপিটের ঘটনায় সামন্তা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এম এম এমদাদ জাহিদকে শোকজ করা হয়েছে। শোকজের জবাব দেওয়ার পর আমরা তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

উল্লেখ্যঃ বছরের প্রথম দিন গত শনিবার সকালে বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে নতুন বছরের নতুন বই হাতে তুলে দেওয়ার পরিবর্তে ছাত্র-ছাত্রীদেরকে মারপিট করেন।

মহেশপুরে বই উৎসবে শিক্ষার্থীদের পেটানো সেই প্রধান শিক্ষককে শোকজ

ইয়ানূর রহমান :  যশোরের চা দোকানি সাব্বির হত্যা মামলার তিন আসামিকে আটক করেছে ডিবি পুলিশ। শুক্র ও শনিবার গাজীপুর জেলা এবং শংকরপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। আটককৃতরা তিনজনই শংকরপুর এলাকায় বসবাস করেন।
তারা হলেন, মণিরামপুরের মৃত্যু ওসমান গাজী ছেলে মনিরুল ইসলাম মনির, একই উপজেলার শ্যামকুড় গ্রামের মৃত্যু আমিনুল ইসলামের ছেলে এনামুল হক বিজয় ও যশোর শহরের শংকরপুর আকবরের মোড় প্রাইমারি স্কুলের পাশের বাড়ির ভাড়াটিয়া মজনুর ছেলে রাকিব হোসেন ।

পরে তাদের স্বীকারোক্তিতে হত্যায় ব্যবহৃত একটি চাকু উদ্ধার করা হয়।
রোববার তাদেরকে আদালতে সোপর্দ করা হলে হত্যার ঘটনা স্বীকার করে জবানবন্দি দেয়। সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মঞ্জুরুল ইসলাম আসামিদের জবানবন্দি গ্রহণ শেষে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

ডিবি পুলিশ ও আদালত সূত্র জানায়, সাব্বির আসামিদের মধ্যে একজনকে মারপিট করে। এ নিয়ে শত্রুতা চলছিল। পূর্বপরিকল্পিতভাবে আসামিরা সাব্বিরকে হত্যা করে।

উল্লেখ্য, গত ১৯ ডিসেম্বর বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শংকরপুর জমাদ্দারপাড়ার
মাসুরা খাতুনের ছোট ছেলে সাব্বির হোসেনকে বাস টার্মিনাল এলাকায় ছুরিকাঘাত করে রক্তাক্ত জখম করে ফেলে পালিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। আশপাশের লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০শয্যা হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় নিহতের মা মাসুরা বেগম সাতজনের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মামলায় আরও নয় ১০জনকে আসামি করা হয়।

যশোর গোয়েন্দা পুলিশের অফিস ইনচার্জ রুপণ কুমার সরকার জানান, থানায় মামলা হওয়ার পর তদন্তের দায়িত্ব পায় ডিবি পুলিশ। ডিবি পুলিশের তদন্তে উঠে আসে হত্যাকারীদের কয়েকজন যশোর থেকে পালিয়ে গাজীপুরে অবস্থান করছে। শুক্রবার মামলার  তদন্ত কর্মকর্তা এসআই শফি আহমেদ রিয়েল, শামীম হোসেন ও মফিজুল ইসলামের সমন্বয়ে একটি টিম গাজীপুর জেলায় অভিযান চালিয়ে মনির ও বিজয়কে আটক করে। পরে শংকরপুরে অভিযান চালিয়ে অপরজনকে আটক করা হয়। আসামিদের দেয়া জবানবন্দি থেকে হত্যায় ব্যবহৃত চাকু উদ্ধার করে পুলিশ।#

 

 

যশোরের চা দোকানি সাব্বির হত্যা মামলার তিন আসামি আটক

অনলাইন সীমান্তবাণী ডেস্ক :  চলতি আমন মৌসুম চালের দাম বেড়েছে আরেক দফা। এবারও চালের বাজার অস্থির করার জন্য চালকল মালিক ও আড়তদাররা কারসাজি শুরু করেছেন। অভিযোগ উঠেছে, মিলার ও আড়তদাররা বাজারে ধীরে ধীরে চাল ছাড়ছেন। চাহিদার চেয়ে জোগান কম হওয়ায় কৃত্রিম সংকট তৈরি হচ্ছে, এতে বাড়ছে চালের দাম।

সরকারি বাণিজ্য সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সম্প্রতি চালের দাম কেজিপ্রতি ৩ থেকে ৪ টাকা বেড়ে গেছে। দাম বাড়ার হার চিকন চালের ক্ষেত্রে বেশি।

আমরা মিটিং করেছি, সেখানে বলা হয়েছে, মিলাররা চাল ধীরে ধীরে ছাড়ছে। মিলাররা ধান মজুত করছে

এই পরিস্থিতিতে বাজার তদারকি জোরদার করার প্রস্তাব দিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। অবশ্য অসাধু ব্যবসায়ীদের রুখে বাজারে চালের দাম সহনীয় করতে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে খাদ্য মন্ত্রণালয়ও।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে ওএমএসের আওতা বাড়ানো হয়েছে। অবৈধ ধান ও চালের মজুত খুঁজে বের করতে খাদ্য বিভাগের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের নেতৃত্বে এ বিষয়ে একটি টাস্কফোর্স গঠনেরও চিন্তা-ভাবনা চলছে। একই সঙ্গে শুল্ক কমিয়ে বেসরকারিভাবে চাল আমদানির জন্য প্রস্তুতিও নিয়ে রাখছে খাদ্য মন্ত্রণালয়।

এ বিষয়ে খাদ্য সচিব মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম বলেন, ‘আমরা মিটিং করেছি, সেখানে বলা হয়েছে, মিলাররা চাল ধীরে ধীরে ছাড়ছে। মিলাররা ধান মজুত করছে। কিন্তু আমরা অভিযান চালিয়ে মজুত পাচ্ছি না। আমরা তথ্য পেয়েছি, মিলাররা ধানটা কিনে কৃষকের কাছেই রাখছে। ফড়িয়ারা ধান মজুত করছে। সে তো কৃষক হিসেবেই মজুত করছে। কৃষকের ঘরে তো মোবাইল কোর্ট করা যায় না।’

তিনি বলেন, ‘(আমন) ধান উৎপাদন অনেক হয়েছে। পর্যাপ্ত ধান আছে। কিন্তু সেই ধান বাজারে আসছে ধীরে ধীরে। এজন্য দাম বেড়েছে।’

মিলাররা ধান কিনে কৃষকের কাছেই রাখছে। ফড়িয়ারা ধান মজুত করছে। সে তো কৃষক হিসেবেই মজুত করছে। কৃষকের ঘরে তো মোবাইল কোর্ট করা যায় না

সরকারিভাবে চাল আমদানি চলমান জানিয়ে সচিব বলেন, ‘আমরা বেসরকারিভাবে আমদানিতে যাবো কি না, সেটা হলো বিষয়। আমাদের উদ্বৃত্ত উৎপাদন, ভোক্তাদের একটু স্বস্তি দিতে হয়, এছাড়া নিরাপত্তা মজুতের বিষয়টি রয়েছে। সেজন্য আমরা বেসরকারিভাবে আমদানিতে যাই। আমরা শুল্ক কমিয়েও চাল আনতে পারি। আমরা দেখছি, বাজারটা কোন দিকে যায়।’

মোটা চাল নিয়ে কোনো সমস্যা নেই দাবি করে সচিব বলেন, ‘আমরা ওএমএস বাড়িয়ে দিয়েছি। ঢাকায় ১০টি ট্রাক বাড়ানো হয়েছে। প্রয়োজনে উপজেলায় নিয়ে যাবো। আমরা ওএমএসের বাজেটের দ্বিগুণ ব্যবহার করে ফেলেছি।’

নাজমানারা খানুম আরও বলেন, ‘কোথাও মজুত দেখলে খাদ্য বিভাগ এনফোর্সমেন্টে যেতে পারছে না। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের নেতৃত্বে আমরা সংশ্লিষ্টদের নিয়ে একটি টাস্কফোর্স করতে চাচ্ছি। এই টাস্কফোর্স মূলত চাল ও আটার বিষয়টি দেখবে।’

বাংলাদেশ অটো রাইস মিল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এ কে এম খোরশেদ আলম বলেন, ‘আমরা দেখে আসছি, যখনই চালের মৌসুম আসছে, দাম কমে গেছে। নতুন ধান যখন আসবে এর এক বা দুই মাস আগে চালের দাম বাড়ে, এর আগে বাড়ে না। কিন্তু এখন ব্যতিক্রম হলো ধান আসার দুই মাস আগে চালের দাম কম ছিল অথচ এখন ধান উঠেছে, কৃষক, ফড়িয়া ও মিলারদের ঘরে ধান, সেই সময় চালের দাম ৪-৫ টাকা বেড়েছে প্রতি কেজিতে। একটা অস্বাভাবিক বিষয়।’

চালের দাম বেশি কিন্তু কৃষক ন্যায্যমূল্য পাচ্ছে না জানিয়ে তিনি বলেন, ‘অসাধু মিলাররা ব্যাংক থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা ঋণ নিয়ে ধান-চাল মজুত করছে, তারাই চালের দামের ঊর্ধ্বগতির জন্য দায়ী।’

তিনি বলেন, ‘গত মৌসুমের চাল এখনও আছে। খাদ্যের অভাব নেই। এখন মিলাররা প্রতিদিন ১০০-২০০ বস্তা করে ধান কিনছে। মিলাররা আগের চালই ধীরে ধীরে ছাড়ছে। যেন বাজারে কম আসে, এতে চাহিদা অনুযায়ী জোগানে ঘাটতি দেখা দেয়, কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি হয়, স্বাভাবিকভাবেই এ পরিস্থিতিতে চালের দাম বেড়ে যায়।’

খাদ্য মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করে বলেন, গত ২৭ ডিসেম্বর চালের দামের ঊর্ধ্বগতি নিয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে সভা করে খাদ্য মন্ত্রণালয়। ওই সভায় একটি গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধি জানান, সরবরাহ কমিয়ে চালের দাম বাড়ানো হচ্ছে। তিনি মনিটরিং জোরদারের সুপারিশ করেন।

টিসিবির সহকারী কার্যনির্বাহী (বাজার তথ্য) মো. নাসির উদ্দিন তালুকদার বলেন, ‘কয়েকদিন আগে একটি মিটিংয়ে কৃষি মন্ত্রণালয়ের লোকজন ছিলেন। তারা বলেছেন, আমনের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি হয়েছে। বৃষ্টিতে যে ক্ষতি হয়েছে তা খুবই সামান্য। ফসলের কোনো ঘাটতি নেই। আমরা বাজার থেকে তথ্য পেয়েছি, মিলার ও আড়তদাররা চাল বাজারে কম করে ছাড়ছে। রাজধানীর পাইকারি ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে আমরা এ তথ্য পেয়েছি। ধরেন এখন দুই ট্রাক চাল লাগবে কোনো পাইকারি ব্যবসায়ীর, কিন্তু তিনি মিলারদের কাছ থেকে পাচ্ছেন এক ট্রাক।’

সম্প্রতি চালের দাম ৩-৪ টাকা বেড়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘চিকন চালের দাম একটু বেশি বেড়েছে।’

‘গত ১ থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাজার পর্যালোচনার জন্য একটি কমিটি গঠন করা হয়েছিল। এই কমিটি মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেট, কারওয়ান বাজার, বাবুবাজার ও মিরপুর-১ নম্বর বাজারে গেছে। মোহাম্মদপুর ও বাবুবাজারে চালের দাম একটু কম, কারওয়ান বাজার ও মিরপুরে দামটা তুলনামূলক বেশি। আমরা দেখেছি, যে চাল মোহাম্মদপুরে ৪০ টাকা, সেটা মিরপুরে ৪১ টাকা, কারওয়ান বাজারে সেটা ৪২ থেকে ৪৩ টাকা।’

দাম বেড়ে গত দু-তিনদিন ধরে স্থিতিশীল আছে জানিয়ে টিসিবির ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘বাজারে চালের প্রকারের শেষ নেই। মিনিকেটই আছে চার রকমের। নাজিরশাইলের রয়েছে অনেকগুলো ধরন। ৫০ রকম চাল থাকলে এর ৫০ রকম দাম।’

নাসির উদ্দিন তালুকদার বলেন, ‘এজন্য আমাদের একটা প্রস্তাব ছিল যে, জাতীয় পর্যায়ে চালের আকৃতি ও মানের ওপর ভিত্তি করে মোটা, মাঝারি ও চিকন- এই তিনটি ধরন নির্ধারণ করে দেবে সরকার। এই তিন ক্যাটাগরিতে চালের দাম নির্ধারণ করা হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এখন চাষাবাদের জন্য উন্নত প্রযুক্তি এসেছে। সরকার ভর্তুকি দিচ্ছে। ফলন বেশি হয়। অটো রাইস মিলগুলো খুব অল্প সময়ের মধ্যে শত শত মণ ধান ছাঁটাই করছে। খরচ কমে গেছে। সেখানে তো চালের দাম কমার কথা, কিন্তু চালের দাম বেড়েই যাচ্ছে।’

বাদামতলী-বাবুবাজার চাল আড়ত মালিক সমিতির যুগ্ম-সম্পাদক কাওসার আলম খান বাবলু বলেন, ‘একটা সপ্তাহ অপেক্ষা করেন, আশা করছি বাজারদর কমে যাবে। চাল কম আসায় দাম বেড়েছে। গত কিছুদিন আগে বেশ বৃষ্টি হয়েছিল। মৌসুমও ছিল শেষ। ধান কাটার পর মানুষ শুকাতে দিয়েছে, ওই সময়ই বৃষ্টি। এখন আবার চাল আসছে। আমন কিন্তু এখনও পুরোপুরি ওঠেনি। দক্ষিণাঞ্চলে আমন এখনও মাঠে আছে।’

বাজার সহনীয় রাখতে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের যত উদ্যোগ

আগামী ৭ জানুয়ারির মধ্যে মাঠ পর্যায়ের খাদ্য কর্মকর্তাদের ধান ও চালের অবৈধ মজুতের তথ্য দেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছে খাদ্য মন্ত্রণালয়।

খাদ্য মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে, জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকদের (ডিসি ফুড) তার জেলায় কারা অবৈধভাবে ধান-চালের মজুত করছেন তা আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রককে (আরসি ফুড) জানাতে হবে। কেউ মজুত না করলে সেটাও জানাতে হবে যে, তার জেলায় কেউ খাদ্য মজুত করছেন না। সেই মজুতদারদের তালিকা অনুযায়ী অভিযান পরিচালনা করা হবে। তবে কোনো জায়গায় মজুত করছে না বলে প্রতিবেদন দেওয়ার পর সেখানে মজুত পাওয়া গেলে, সেই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

চাল ও আটার বাজার মনিটরিংয়ের জন্য খাদ্য মন্ত্রণালয়ের নেতৃত্বে কৃষি ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্টদের নিয়ে একটি টাস্কফোর্স গঠনের উদ্যোগও নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন খাদ্য মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা। এজন্য একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা করা হবে।

ওই কর্মকর্তা জানান, শুল্ক কমিয়ে সরু চাল আমদানির প্রস্তুতি নিতে কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। এবার ২৫ শতাংশের কম শুল্কে চাল আমদানির জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের অনুমতিটা আগেই নিয়ে নেওয়া হবে। যাতে প্রয়োজন হলে দ্রুত চাল আমদানিতে যাওয়া যায়।

 

চালকল মালিক ও আড়তদারদের কারসাজিতে আবারও চালের দামে ঊর্ধ্বগতি

অনলাইন সীমান্তবাণী ডেস্ক :  ২০২১ সালের এপ্রিল মাস থেকে ধারাবাহিকভাবে কমে যাচ্ছে রেমিট্যান্স। বছরের শেষ মাস ডিসেম্বরে এসে সে ধারাবাহিকতায় ছেদ পড়ল। এতে টানা আট মাস পর ঊর্ধ্বমুখী ধারায় ফিরল রেমিট্যান্স।

গত ডিসেম্বর মাসে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে প্রবাসীরা দেশে পাঠিয়েছেন ১৬২ কোটি ৯০ লাখ (১.৬২ বিলিয়ন) মার্কিন ডলার। এটি নভেম্বর মাসের তুলনায় ৭ কোটি ডলার বেশি।

করোনা ভাইরাসের কারণে বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে ভাটা গেছে। এই মহামারির মধ্যেও প্রবাসী বাংলাদেশিরা রেমিট্যান্স পাঠানো অব্যাহত রেখেছিলেন। এতে প্রথম দিকে প্রতি মাসেই বেড়েছে রেমিট্যান্সের পরিমাণ। তবে গত এপ্রিল মাসের পর থেকে ধারাবাহিকভাবে রেমিট্যান্স কমতে থাকে। গত ডিসেম্বরে এসে তার অবসান হলো।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য মতে, গত ডিসেম্বর মাসে প্রবাসীরা ১৬২ কোটি ৯০ লাখ মার্কিন ডলারের রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ১৪ হাজার কোটি টাকার বেশি (প্রতি ডলার ৮৭ টাকা ধরে)। যা আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে ৪৩ কোটি ডলার কম। গত বছরের ডিসেম্বর ২০৫ কোটি ০৬ লাখ  ডলারের রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা।

এদিকে ২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর সময়ে ২ হাজার ২০৭ কোটি ডলার। ২০২০ সালের পুরো সময়ে এ পরিমাণ ছিল ২ হাজার ১৭৪ কোটি ১৮ লাখ ডলার। সে হিসেবে গত এক বছরে রেমিট্যান্সের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১ দশমিক ৫১ শতাংশ।

অবশ্য গত ছয় মাসে প্রবাসী আয়ের প্রবৃদ্ধি আগের বছরের ছয় মাসের তুলনায় নেতিবাচক। গত ছয় মাসে দেশে রেমিট্যান্স এসেছে ১ হাজার ২৩ কোটি ৭৯ লাখ ডলার। আগের বছরের শেষ ছয় মাসে রেমিট্যান্স এসেছিল ২৯৪ কোটি ৪৭ লাখ ডলার। সেই হিসাবে এ সময়ে ২৭০ কোটি ডলার কম রেমিট্যান্স এসেছে।

২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা ঘোষণা করা হয়। বৈধ উপায়ে প্রবাসী আয় বাড়াতে এমন সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। সে অনুযায়ী, গত বছরে ১ জুলাই থেকে প্রবাসীরা ব্যাংকিং চ্যানেলে টাকা পাঠালে প্রতি ১০০ টাকার বিপরীতে দুই টাকা প্রণোদনা পেয়ে আসছেন। এর ফলে করোনার মধ্যেও রেকর্ড গড়ে রেমিট্যান্স। পরে অবশ্য কমতে শুরু করে। এদিকে গতকাল রেমিট্যান্সে প্রণোদনা হিসেবে আরো দশমিক ৫ শতাংশ যুক্ত হবে বলে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। ফলে এখন থেকে আড়াই শতাংশ বা ১০০ টাকায় আড়াই টাকা প্রণোদনা পাবেন সুবিধাভোগীরা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যমতে, সেপ্টেম্বর মাসে প্রবাসী আয় কমে আগস্টের তুলনায় ৯ কোটি ডলার। গত আগস্ট মাসে প্রবাসী আয় ছিল ১৮১ কোটি ডলার, যা জুলাই মাসের চেয়ে ৬ কোটি ডলার কম। জুলাই মাসে ১৮৭ কোটি ডলার রেমিট্যান্স আসে, যা জুনের তুলনায় ৬ কোটি ৯৩ লাখ ডলার কম। জুন মাসে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৯৪ কোটি ডলার, যা মে মাসের তুলনায় ২৩ কোটি ডলার কম।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন থেকে আরও জানা গেছে, ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর) দেশে রেমিট্যান্স আসে ১ হাজার ২৩ কোটি ৯০ লাখ ডলার।

বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ৮৭ হাজার ২১ কোটি ৩০ লাখ টাকা, যা আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ২৭৯ কোটি ৮২ লাখ ডলার কম। ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে রেমিট্যান্স আসে ১ হাজার ২৯৪ কোটি ২০ লাখ ডলার। দেশীয় মুদ্রায় যার পরিমাণ ছিল ১ লাখ ১০ হাজার কোটি টাকা।

গত বছরের তুলনায় রেমিট্যান্স কমে যাওয়ার কারণ হিসেবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, করোনার বিধিনিষেধ উঠে যাওয়ায় অবৈধ চ্যানেলে বিশেষ করে হুন্ডির মাধ্যমে অর্থ লেনদেন বেড়েছে। তাছাড়া করোনার প্রভাবে প্রবাসীরা যেভাবে চাকরি হারিয়েছেন সেভাবে দেশের বাইরে নতুন শ্রমশক্তি নিয়োগ হয়নি।

 

ডিসেম্বর মাসে প্রবাসীদের পাঠানো ১৬২ কোটি ৯০ লাখ মার্কিন ডলার এলো দেশে

অনলাইন সীমান্তবাণী ডেস্ক :  ৪ লাখ ৮৫ হাজার ৯২টি ভূমিহীন, গৃহহীন, ছিন্নমূল ও অসহায় পরিবার ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা মূল্যের পাকা ঘর পাবে। যার মূল্য আগে নির্ধারণ করা হয়েছিল ২ লাখ টাকা। এজন্য সরকার আরও ৬ হাজার ৩১৬ কোটি টাকা ব্যয় করবে। ফলে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পটির চতুর্থ সংশোধন করা হবে। বাংলাদেশে ভূমিহীন, গৃহহীন, ছিন্নমূল ও অসহায় দরিদ্র জনগোষ্ঠীর পুনর্বাসন, আয়বর্ধক কার্যক্রম সৃষ্টির মাধ্যমে উপকারভোগীদের দারিদ্র্য বিমোচন এবং ঋণ প্রদান ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহে সক্ষম করে তোলা হবে এ প্রকল্পের মাধ্যমে।

প্রকল্পসূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। আগামী মঙ্গলবার (৪ জানুয়ারি) জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় প্রকল্পটি সংশোধনের জন্য উপস্থাপন করবে পরিকল্পনা কমিশন। রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে একনেক সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় সভাপতিত্ব করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রকল্পের বিষয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী মানবিক। ওনার একটাই ভিশন, কেউ ঘরহারা থাকবে না, কেউ না খেয়ে থাকবে না। সবাই যাতে মোটা ভাত, মোটা কাপড় পরে মানবিক জীবনযাপন করতে পারে, সেই লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। পর্যায়ক্রমে সব ভূমিহীন ও গৃহহীন মানুষের আবাসন ব্যবস্থা করা হচ্ছে। প্রকল্পের সময় বাড়িয়ে আরও বেশি মানুষকে এ প্রকল্পের সুবিধা পৌঁছে দেওয়া হবে।

জানা গেছে, প্রকল্পটি বাস্তবায়নকারী সংস্থা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। মূল অনুমোদিত প্রকল্পের ব্যয় ছিল ১ হাজার ১৬৯ কোটি ১৮ লাখ টাকা। এরপর প্রথম সংশোধিত ব্যয় ২ হাজার ২০৪ কোটি ২০ লাখ টাকা। দ্বিতীয় সংশোধিত ব্যয় ছিল ৪ হাজার ৮৪০ কোটি ২৮ লাখ টাকা। তৃতীয় সংশোধিত ব্যয় ছিল ৪ হাজার ৮২৬ কোটি ১৬ লাখ টাকা।

কাজের পরিধি বাড়ার ফলে চতুর্থ সংশোধিত প্রস্তাবে প্রকল্পের ব্যয় বেড়ে দাঁড়াচ্ছে ১১ হাজার ১৪২ কোটি ৮৭ লাখ টাকা। ফলে পাঁচ লাখ মানুষকে পাকা বাড়িতে দিতে সরকার আরও ৬ হাজার ৩১৬ কোটি টাকা ব্যয় করবে। প্রকল্পটি অনুমোদনের পর জুন ২০২৩ মেয়াদে এটি বাস্তবায়ন করা হবে।

নানা কারণে প্রকল্পটি সংশোধন করা হচ্ছে। মুজিববর্ষে দেশের ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য ‘গৃহ প্রদান নীতিমালা-২০২০’ বাস্তবায়ন এবং প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রকল্পের কাজ ২০২৩ সালের মধ্যে সম্পন্ন করার সানুগ্রহ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আংশিক সংশোধিত ডিজাইন মোতাবেক একক গৃহের নির্মাণ মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা।

প্রকল্পের আওতায় ৫ হাজার ১৪৯টি পাকা ব্যারাক, চরাঞ্চলে ৫ হাজার ৭৮টি সিআইসিট ব্যারাক, ৪ হাজার ৩৯৩টি সেমিপাকা ব্যারাক নির্মাণ ও ৬০টি বহুতল ভবন নির্মাণ হবে। ১ হাজার ১২০টি কমিউনিটি সেন্টার, ৫৮০টি বিশেষ ডিজাইনের ঘর, ৫৬৫টি ঘাটলা, অভ্যন্তরীণ রাস্তা, বক্স কালভার্ট, পাকা ড্রেন ও স্লপ প্রোটেকশন নির্মাণ করা হবে। সব প্রকল্প গ্রামে অগভীর-গভীর নলকূপ ও অভ্যন্তরীণ রাস্তাও থাকবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রকল্পটি ভূমিহীন, গৃহহীন, ছিন্নমূল ও দরিদ্র জনগোষ্ঠীর আবাসন সুবিধা নিশ্চিতকরণ এবং বিভিন্ন প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে পিছিয়েপড়া গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে বিশেষ অবদান রাখবে বিবেচনায় এটি ৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার উদ্দেশ্য ও লক্ষ্যের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ।

গৃহহীনদের ঘর নির্মাণে বরাদ্দ বাড়ছে

অনলাইন সীমান্তবাণী ডেস্ক :  ময়মনসিংহের তারাকান্দায় গরুসহ প্রাইভেটকার উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ সময় প্রাইভেটকারের ভেতর থেকে তিনটি গরু উদ্ধার করা হয়।

রোববার (২ জানুয়ারি) সকালে উপজেলার গোপালপুর বাজারের শেরপুর-ময়মনসিংহ মহাসড়ক থেকে গরুসহ প্রাইভেটকারটি জব্দ করা হয়।

তারাকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল খায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, সদর অথবা আশপাশের কোনো এলাকা থেকে রাতে গরু চুরি করে প্রাইভেটকারে নিয়ে যাচ্ছিল সংঘবদ্ধ চোর চক্র। পথিমধ্যে উপজেলার গোপালপুর এলাকার শেরপুর-ময়মনসিংহ মহাসড়কে প্রাইভেটকারের চাকা ফেটে যায়। এমতাবস্থায় প্রাইভেটকারসহ গরুগুলো ফেলে যায় চোরেরা। পরে স্থানীয়রা গাড়ির ভেতর গরু দেখে থানায় খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রাইভেটকারসহ গরু তিনটি জব্দ করে।

তিনি আরও বলেন, আশপাশের বিভিন্ন এলাকায় গরু পাওয়ার বিষয়টি জানানো হয়েছে। কেউ যদি উপযুক্ত প্রমাণ দেখাতে পারে। তাহলে গরু হস্তান্তর করা হবে। তা না হলে পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

ময়মনসিংহে চোরাই গরু প্রাইভেটকারে করে নিয়ে যাওয়ার সময় ফেটে গেলো চাকা

স্টাফ রিপোর্টার : ঝিনাইদহের মহেশপুরের কাজীরবেড় ইউনিয়নের সদ্য প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা রায়হান বেগের ছেলে মোঃ আল মামুন বেগ নিজেকে সাম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়ে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন ।

মহেশপুরের কাজীরবেড় ইউনিয়নের লালপুর গ্রামের রায়হান উদ্দিন বেগ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের জনপ্রেয় নেতা ছিলেন। তিনি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন ৩ বার, নির্বাচিত ইউপি সদস্য ছিলেন ৪ বার এবং তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের  সদস্য হিসেবেও কয়েকবার দায়িত্ব পালন করেন।

আসন্ন ইউপি নির্বাচনে সাম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে তিনি বেশ কয়েক মাস যাবৎ গণসংযোগ চালিয়ে আসছিলেন।

গত ৫ ফেব্রুয়ারী তার নিজ ইউনিযনে রাজনৈতিক শো-ডাউন চলা অবস্থায় তিনি স্ট্রোক করে মৃত্যুবরণ করেন।

জনপ্রিয় রাজনৈতিক নেতা রায়হান বেগের মৃত্যুর পর তার অনসারীরা রায়হান বেগের ছেলে কাজীরবেড় ইউনিয়ন যুবলীগের সদস্য মোঃ আল মামুন বেগকে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হতে উদ্বুদ্ধ করায় আল মামুন বেগ নিজেকে সাম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়ে তার ইউনিয়ন এলাকায় গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন।

 

 

 

 

মহেশপুরের কাজীরবেড় ইউনিয়নের সদ্য প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা রায়হান বেগের ছেলে আল মামুন বেগ সাম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী

স্টাফ রিপোর্টার : ঝিনাইদহ সদর উপজেলার গান্না ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ নাসির উদ্দীন মালিতার নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করার অভিযোগ করেছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীরা। গান্না ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সকল নেতা কর্মীরা তাদের ফেসবুক আইডিতে এই মামলার তিব্র নিন্দা জানিয়ে পোষ্ট দিচ্ছেন।

চেয়ারম্যান নাসির উদ্দীন মালিতা বলেন, দীর্ঘ দিন আগে গান্না ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক শান্তি মার্ডার মামলায় আমাকে উদ্দ্যেশ্য প্রণদিতভাবে জড়িয়ে মামলার ৯ নম্বর আসামী করা হয়, পরে নিহতের শ্বশুর সিরাজ উদ্দীন ভুল স্বীকার করে আমার মামলা তুলে নিতে রাজি হন এবং বলেন ভুল করে আমার নাম চলে এসেছে তারা আমাকে ফাসাতে চাননি। পরে জানতে পারি রিমান্ডে খুনিদের মুখ দিয়েও নাকি আমার নাম বলানো হয়েছিলো আমাকে ফাসানোর জন্য। এই মিমাংসার পরেও নির্বাচন সামনে হওয়ায় প্রায় ১০ বছর আগের সেই মিথ্যা মামলা আবার চালু করে আমার ইমেজ নষ্ট করতে উঠে পড়ে লেগেছে একটি চক্র। তারা জননেত্রী শেখ হাসিনার আদর্শে বিশ্বাস করেনা, তারা বিশ্বাস করে সন্ত্রাস, দূর্ণীতি আর খুন খারাপির রাজনীতিতে যা আমি কখনই হতে দেবো না। শান্তি প্রিয় গান্নার মানুষ আমার সাথে আছেন।

উল্লেখ্য, ২০১০ সালের ৭ই জুলাই সন্ধ্যায় ঝিনাইদহ সদর উপজেলার গান্না বাজার থেকে নিজ গ্রাম কাশিমনগর বাড়ি ফেরার পথে খালের ব্রিজের উপরে বোমা হামলায় মারাত্মক আহত হন গান্না ইউনিয়নের তৎকালীন ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জাকির হোসেন মণ্ডল শান্তি। ঘটনার ৩ দিন পর ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। এ ঘটনায় ঝিনাইদহ সদর থানায় একটি বিস্ফোরক ও আরেকটি হত্যা মামলা দায়ের করেন নিহতের শ্বশুর সিরাজুল ইসলাম মালিতা। ঘটনার সঙ্গে জড়িত ৮ আসামিকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারকৃতরা হত্যার কথা স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়। তাদের জবানবন্দির ভিত্তিতে মামলার ৯ নং আসামি হয়ে যান চেয়ারম্যান নাসির মালিতা।

স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, নির্বাচনে ক্লিন ইমেজের নাসির উদ্দীন মালিতা যেন নৌকা প্রতীক না পান মূলত সেজন্যই এই মিথ্যা মামলায় নতুন করে চেয়ারম্যানের নাম তুলে আনা হয়েছে, তারা আরো বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার এই ডিজিটাল বাংলাদেশে আর এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের স্থান দেবেন না গান্নার সাধারণ ভোটাররা।

ঝিনাইদহে আওয়ামী লীগ দলীয় ইউপি চেয়ারম্যানের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার : পুর্ব শ্রুতার জের ধরে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার নাটিমা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ও আওয়ামী লীগ নেতা মন্টু মেম্বার (৫০) কে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে  কতিপয় সন্ত্রসী। এলাকাবাসী গুরুতর আহত অবস্থায় প্রথমে মহেশপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তী করছে।ে ঘটনাটি ঘটেছে গত ১৫সপ্টেম্বের বুধবার বিকাল ৫টা দিকে মহেশপুর-ভৈরবা সড়কের নস্তী বাজার এলাকায়।

এ ঘটনায় থানা পুলিশ রাতেই শরীফুল ইসলাম (৪৮) নামের এক জনকে আটক করে জেল হাজতে পাঠিয়েছে।

এলাকাবাসী জানান, মহেশপুর উপজেলার উজ্জলপুর গ্রামের গোল্ড ব্যবসায়ী মিলন মিয়ার সাথে ইউপি সদস্য ও আওয়ামী লীগ নেতা মন্টু মেম্বারের র্দীঘ দিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। বিরোধের কারণে কয়েকদিন পুর্বে মারামারিও হয়েছে। এ ঘটনার জের ধরেই মন্টু মেম্বারকে হত্যার চেষ্টা করা হয়ছে।ে

আহত মন্টু মেম্বার জানান, উজ্জলপুর গ্রামের গোল্ড ব্যবসায়ী মিলন মিয়া আমাকে হত্যা করার জন্য নস্তী গ্রামের ইয়ার আলী, শরীফুল ইসলাম, তরিকুল ইসলাম, বাবর আলী ও জসিমকে ভাড়া করে। তিনি আরো জানান, আমি বুধবার বিকাল ৫টার দিকে মটর সাইকেল যোগে মহেশপুর থেকে বাড়ী ফেরার সময় নস্তী বাজারে দাড়ানোর সাথে সাথে নস্তী গ্রামের ইয়ার আলী ও শরীফুল ইসলাম আমাকে দা দিয়ে কোপাতে থাকে। পরে বাজারের লোকজন এগিয়ে এলে তারা পালিয়ে যায়।

মহেশপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম জানান, মন্টু মেম্বারকে কুপিয়ে আহত করার ঘটনায় নস্তী গ্রামের শরীফুল ইসলামকে আটক করে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। বাকি আসামীদের আটকরে চেষ্টা চলছে।

 

 

ঝিনাইদহের মহেশপুরে আওয়ামী লীগ নেতা মন্টুকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে কতিপয় সন্ত্রাসী